বিজয়ের চেতনা

৫০ বছর হতে চলেছে বাংলাদেশের। অর্ধশত বছরের এই যাত্রাটি অর্জনের হিশেবে দীর্ঘ না হলেও, দৈর্ঘের হিশেবে যথেষ্ট দীর্ঘ। আসলে অর্জনের খাতায় শূন্যতার অভিশাপের কালিমা তো দেশের কারণে লাগেনি, এত উর্বর জমি, এত চমৎকার আবহাওয়া থাকার পরেও যে এই দেশের যথাযথ উন্নতি হচ্ছে না সেই দায় তো দেশের না। পুরো দায়টাই এই দেশের ওপর অধিকার দাবি করা মানুষগুলোর। কেননা এখন এই এদেশের মানুষের কাছে শান্তির একমাত্র অর্থ হচ্ছে, পেটপুরে ভাত খেয়ে, পাটির ওপর পিঠ পেতে নাক ডেকে ঘুমাতে পারা। অথচ, পেটপুরে ভাত খাওয়া এই ছোট-খাটো মানুষগুলোই একদিন শান্তির খোঁজে বুক পেতে দিয়েছিল বড় বড় কামানের সামনে, হাতে তুলে নিয়েছিল অস্ত্র, শান্তির জন্য ভুলেই বসেছিল আরাম-আয়েশ। তবে এখন বদলে গিয়েছে মানুষগুলো। বদলেছে তাদের শান্তির অর্থ। আর এইসব কিছুর মধ্যে পার্থক্য কেবলই পঞ্চাশ বছরের।

 

আজ বিজয় দিবস বাঙ্গালীর কাছে স্রেফ একটি ছুটির দিন। পরিবারকে, প্রিয়জনকে সময় দেওয়ার একটি মোক্ষম সুযোগ ছাড়া কিছুই না। তাই ঊনপঞ্চাশ বছর পরে এসে অনেকের মুখে শুনতে হয়, “আমি স্বাধীনতা দিবস এবং বিজয় দিবসকে আলাদা করার লজিকটা বুঝে উঠতে পারি না।” আজকের দিনে এসে এসব কথা শুনলে একবার বসে ভাবতে ইচ্ছে করে, কেমন হতো যদি ইতিহাসের আকাশে বাঙ্গালীর বিজয়ের সূর্যোদয় না হতো? ৭১-এ বাঙ্গালী পরাজিত হলে কেমন হতো আজকের বাংলাদেশ?

হয়তো, আজ যাদেরকে ‘মুক্তিযোদ্ধা’ বলে স্মরণ করা হয়, তাদেরকে চেনানো হতো ‘গাদ্দার’ বলে। যেভাবে ‘মতিউর রহমানের’ কবরের ফলকে লেখা হয়েছিল, ‘ইধার সো রাহাহে এক গাদ্দার’। মুক্তিযোদ্ধার ছেলে বা নাতি বলে আজ যাদেরকে এক্সট্রা সুযোগ দেওয়া হয়, তাদেরকে ‘মীর জাফরের’ সন্তান বলে সবকিছু থেকে বঞ্চিত করা হতো। আজ যাদেরকে ‘বীরাঙ্গনা’ বলে সম্মাননা দেওয়া হচ্ছে, আল্লাহ জানে তাদেরকে কী বলে সব বই পুস্তকে আখ্যায়িত করা হতো! বাঙ্গালী ‘বীরের জাত’ হয়ে যেত ‘নেমকহারামের জাত’। কিছু জিনিস অবশ্য ভালো হতো, যেমন: স্বাধীনতার ঘোষকের টাইটেল নিয়ে হয়তো বেহুদা টানাটানি চলতো না।

 

এগুলো সব হতো যদি ১৬ ডিসেম্বর বিজয় আমাদের ভাগ্যে না আসত। ইতিহাসের পাতায় স্বাধীনতার ঘোষণা পুরোটাই হয়ে যেত একটি জাতির বিদ্রোহের ইতিহাস। কিন্তু আফসোস, বিজয়ের ঊনপঞ্চাশ বছর পরে এসেও আমরা এই দিনের গুরুত্ব যথাযথ উপলব্ধি করতে পারি না। আসলে উপলব্ধি করতে না পারার দোষটাও আজকালের ছেলেদের না। দোষটা হচ্ছে দায়িত্বশীলদের। পিতা-মাতা অথবা শিক্ষক কিংবা সরকারসহ সেই প্রত্যকজনের, যারা একজন শিক্ষার্থীর শিক্ষার সাথে কোনো না কোনোভাবে সম্পৃক্ত। কেননা, বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থাতে স্রেফ এটাই যাচাই করা হয় যে, মুক্তযুদ্ধের পটভূমি মুখস্ত করার দক্ষতা এবং তা পরিক্ষার খাতায় হুবহু লিখতে পারার ক্ষমতা কার কতটুকু আছে। পটভূমিকে মনে ধারণের দক্ষতা যাচাইয়ের কোনো প্রয়োজনই আজকের সমাজে নেই। প্রয়োজন নেই, তাই কোনো উপায়ও নেই। রবীন্দ্রনাথ বলেন, “পুনরাবৃত্তি করিবার শিক্ষা মনের শিক্ষা নহে, তাহা কলের দ্বারাও ঘটিতে পারে।”

যে জীবনে কখনো মধু চেখে দেখেনি, সে বুঝি মধুর জন্য টাকা খরচ করবে? দেশের ষষ্ঠ থেকে দশমের ‘সমাজ’ বইয়ে মুক্তিযুদ্ধের আলোচনা থাকে। কিন্তু আফসোসের বিষয় হলো অল্প বাড়তি তথ্য ছাড়া প্রতিবছরই প্রায় একই ঘটনার চর্বিতচর্বণ। আমাদের মনে রাখা উচিত, একই খাবার প্রতিদিন প্রতিবেলা খেতে দিলে খাবার প্রতিই একপ্রকার অনিহা চলে আসে এবং ঘৃণা জন্মায় সেই বিশেষ খাবারের প্রতি। তাই, প্রতিবছর একই পদ্ধতিতে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস শেখানোর ফলে শিক্ষার্থীদের মনে মুক্তিযুদ্ধের প্রতি শ্রদ্ধা, সম্মানের কোনো চিহ্নই আর খুঁজে পাওয়া যায় না। তখন তারা কেনই বা বলবে না যে, স্বাধীনতা দিবস এবং বিজয় দিবসের মধ্যের পার্থক্যটা তাদের বুঝে আসে না।

এই বুঝে না আসার আরেকটা কারণও অবশ্য আছে। যেহেতু বিজয় দিবস প্রাপ্তিতে আমাদের কোনো অবদানও নেই, কোনো প্রকার সংযুক্তিও নেই, তাই এই বিজয় দিবস নিয়ে আমাদের তেমন কোনো অনুভূতিও নেই। আসলে এই বিজয় দিবস তো ‘আজাদের মায়ের’। বিজয় দিবসতো ‘একাত্তরের দিনগুলো’র জাহানারা ইমামের, ‘হাঙর নদী গ্রেনেডের’ সেই বুড়ি মায়ের। এই বিজয় দিবস ত্রিশ লক্ষ শহিদের বিধবা স্ত্রী, ছেলে-সন্তান এবং মা-বাবার। এই বিজয় দিবস অগণিত বীরাঙ্গনার। এই বিজয় দিবস ওই প্রত্যেকের যাদের কোনো না কোনোভাবে অবদান আছে, সংযুক্তি আছে মুক্তিযুদ্ধের সাথে। আর আছে বলেই তারা জানেন এবং খুব ভালো করেই বোঝেন স্বাধীনতা দিবস এবং বিজয় দিবসের পার্থক্য এবং সাথে অনুভব করতে পারেন এর প্রয়োজনীয়তা। এঁদের কাছে গিয়ে জিজ্ঞেস করুন, স্বাধীনতা এবং বিজয় দিবসের পার্থক্যটা কী? আশা করি, তাঁদের চোখের কোণ দিয়ে ঝরে পড়া দু’ফোটা জলই আজকের নবীনদের জন্য পার্থক্য বুঝতে যথেষ্ট হবে।

আমাদের আজকের প্রজন্মকে বুঝাতে হবে যে, ১৯৭১ সালের ৯ মাসের পটভূমি মুখস্ত করে পরিক্ষায় লিখতে পারাতে বাহাদুরী নেই। বরং, আত্মস্থ করে তা প্রয়োগের মধ্যেই সব প্রাপ্তি। বিজয়ের প্রয়োজনীয়তাকে আত্মস্থ করানোর উপায়টা আমাদেরকেই বের করতেই হবে। হতে পারে তা নাটকের মাধ্যমে, চলচ্চিত্রের মাধ্যমে, গান-কবিতা, আবৃত্তির মাধ্যমে। বই পুস্তক তো আছেই, বয়সানুযায়ী তুলে দিতে হবে প্রত্যেক কিশোর হতে যুবকের হাতে। আমাদেরকে কেবল প্রয়োজনটা অনুভব করতে হবে, এরপর শত শত পদ্ধতি এমনিতেই বেরিয়ে আসবে।  ক্রিকেট খেলায় বাংলাদেশের বিজয়ে আমরা যতটা খুশি হই, ১৬ ডিসম্বরের কথা স্মরণ হলে এরচেয়ে বেশি না হোক, অন্তত একই ধরণের আনন্দ, ঠিকই একই রকমের উচ্ছ্বাস আমাদের অনুভব করতেই হবে। সেই অনুভূতির জন্য যা যা করা প্রয়োজন সবকিছুই করতে হবে আমাদের।

 

স্কুল-কলেজ কিংবা শিক্ষার সাথে সম্পৃক্ত এবং দায়িত্বশীলদের দিকে চাতক পাখির মত তাকিয়ে থাকলে এগুলো কখনোই সাধন হবে না। যেভাবে কবিগুরু বলেছেন, “দেশের লোককে শিশুকাল হইতে মানুষ করিবার সদুপায় যদি নিজে উদভাবন এবং তাহার উদ্যোগ যদি নিজে না করি, তবে আমরা সর্ব প্রকারে বিনাশপ্রাপ্ত হইব…। বস্তুত আমরা প্রত্যহই মরিতেছি অথচ তাহার প্রতিকারের উপযুক্ত চেষ্টামাত্র করিতেছি না, তাহার চিন্তামাত্র যথার্থরূপে আমাদের মনেও উদয় হইতেছে না, এই–যে নিবিড় মোহাবৃত নিরুদ্যম ও চরিত্রবিকার- বাল্যকাল হইতে প্রকৃত শিক্ষা ব্যতীত কোনো অনুষ্ঠান-প্রতিষ্ঠানের দ্বারা ইহা নিবারণের কোনো উপায় নাই”। (শিক্ষা সংস্কার)

 

৫০তম বছরে পাঁ রাখতে যাওয়া বাংলাদেশকে বয়সের ভারে নুইয়ে পড়া সেই অবহেলিত বৃদ্ধার সাথে তুলনা করব, নাকি কোনো শিশুর সাথে, অযত্নে যার শারীরিক-মনসিক উন্নতির কোন দেখা মিলছে না। অন্য কোনো জাতি হলে হয়তো এতদিনে আশা ছেড়েই দিত। কিন্তু আমরা কিনা বাঙ্গালী। আর কবিগুরু বলে গিয়েছেন, “মানুষে বিশ্বাস হারানো পাপ।” তাই আমরাও দেশ এবং দেশের জনগণের ওপর থেকে কখনোই আস্থা হারাই না।

তাই তো এত অধঃপতনের পরেও হাল ছাড়েনি কেউই। এখনো এদেশের মানুষ স্বপ্ন দেখে। সুন্দর আগামীর স্বপ্ন। উন্নত বাংলাদেশের স্বপ্ন। যদিও সময়ের সাথে সাথে বাংলার আবওহায়া বদলেছে, বদলেছে জীবনব্যবস্থা, শখ-আহ্লাদ, চাহিদা আরো কত কিছুই না বদলেছে। এতকিছু বদলের মাঝেও যা একেবারেই বদলায়নি তা হলো, এদেশের মানুষের বাঙ্গালী হয়ে জন্মানো এবং পূর্বে শত শত বাঙ্গালীর আত্মত্যাগী চেতনা। তাই আমাদের কাজ হলো বাঙ্গালীকে বাস্ একবার তার বাঙ্গালীত্ব স্মরণ করিয়ে দেওয়া, বাকিটা অগ্রজদের চেতনাই করে দেখাবে। তখন বাংলাদেশ আর শত বছরেও বৃদ্ধ হবে না। যৌবন তার সর্বাঙ্গে শোভা পাবে। হয়তো এই ভাবনা থেকে কবি সুকান্ত বলে উঠেছিল, “এদেশের বুকে আঠারো আসুক নেমে।”

মতামত
লোডিং...