শ্বাসরোধী সৌন্দর্য

অকস্মাৎ আর অভ্যাসের মাঝে বয়ে যায় অজস্র মৎস্যময় নদী। অকস্মাতের তীরে থাকে অচেনা ও অপ্রস্তুতিতে হৃত হবার অবকাশ। অভ্যাসের কুলে থাকে লীন ও সমাহিত হয়ে না জাগবার একটি ঘূর্ণিজড়তা। অকস্মাৎ তার তাঁবু টানিয়ে বসে আছে সেই জড়তা থেকে আপনাকে ছিটকে ফেলবে বলে। ছিটকে পড়লে আহত হবেন এবং তা একটি দুর্ঘটনাও বটে। তবে সে দুর্ঘটনায় দুয়ারও খোলে। সেই দরজা দিয়ে নিজের বাইরে আপনি বেরিয়ে আসেন। যা কিছু আপনার অভ্যাসের অঙ্গ তা বস্তুত আপনারই অঙ্গ। সেই দেহ থেকে বেরিয়ে এলেই জগত নিজেকে আপনার সামনে মেলে ধরবে। জগতের নিজেকে মেলে ধরার স্বভাব রয়েছে, যা আপনার স্বভাবের কিঞ্চিত বাইরে। তবে তার সাথে একটি সম্বন্ধ গড়ে নিলে জগতও আপনাকে নিজের করে নেবে।

অকস্মাতের গভীরে সুপ্ত থাকে সুন্দর। একারণে সৌন্দর্যের মুখোমুখি হঠাৎ উপস্থিত হওয়া একটি ঝড়ো পরিস্থিতিতে ফেলে আপনাকে। তখন শ্বাস রোধ হয়ে আসতে চায়। সৌন্দর্যের সাথে বেড়ে ওঠা, জীবন যাপন করার বিষয় আছে বটে। তাতে সৌন্দর্য অভ্যাসের অঙ্গ হয়। তবে শ্বাসরুদ্ধকর এমন মিলনের সুখও তো চাই। এ হল যা আমি নই বা যা আমার নয় তার মুখোমুখি দাঁড়িয়ে তার মিলনের সামনে কম্পনের ঘটনাময়তা।

হঠাৎ করে ঘটা, আচমকা, নাটকীয়ভাবে ঘটা, এসব যে জগত থেকে আসে তার কেন্দ্রে থাকে নিজেকে অপরের মুখোমুখি করার রোমাঞ্চ। সেই রোমাঞ্চের এক প্রতিঝড়ও রয়েছে যা উড়িয়ে নেবার বদলে শীলিভূত করে দেয় আপনাকে। কেননা তা ভেতরে ঘটে। আপনার অস্তিত্বকে হরণ করে, আপনার ভেতরটাকে হয়ত হননও করে–মুহূর্তে আপনি নিজের স্বরূপ থেকে ছিটকে পড়েন, দিশেহারা হয়ে পড়েন কেননা নিজের চেনা সত্ত্বাকে খুঁজে, হাতড়ে, সাঁতরেও পান না অথবা পারেন না ধরতে। তখনই সৌন্দর্যের সাথে সংলাপ শুরু করেন–ফিরে আসার একটা পথ সেটা। বিনাশ থেক নতুন জন্ম লাভ করেন আপনি। যা আপনার নয় তা কি শত্রু? বলা কি যায়? তবে আপনি তো তাকে পাল্টা গ্রাস করতেও চাইছেন। যদিও সেই আপনাকে আগাম গ্রাস করেছে। মধুর প্রতিশোধ নেবেন নিশ্চয়ই।

সুন্দর সে যদি একটি ছবি মাত্র হয় তবে যে ধমক আপনার কোরকে লাগতে পারে তার মাঝে প্রবেশের পর তা স্তিমিত হয়ে আপনাকে হয়ত আরও বড় জলাধারে পরিণত করতে পারে, হয়ত আপনার মাঝ থেকে বৃষ্টিরও জন্ম হতে পারে। সৌন্দর্যের সাথে সহবাস, যদি একে সৌন্দর্য গমন বলি, তাতে সহজ হয়ে আসা ভাবনা ও তা থেকে জারিত নানা ফুল নিয়ে কিছু কথা হোক।

অস্তিত্ব স্তম্ভিত হয়ে যাওয়া এবং কেঁপে ওঠা সৌন্দর্য রয়েছে আপনারই ভুবনে। কিন্তু তাদের সাথে হয়ত প্রতিদিন দেখাও হয় না– হঠাৎ দেখা পাবেন তাদের।

মতামত
লোডিং...