কবিতা || কাজী নজরুল ইসলামের প্রতি : শামসুর রাহমান ||

 

একদা কবিতা তার বুক নগ্ন করে দিলাে আপনার চোখের সম্মুখে

আপনি সে নগ্নতায় দেখেছেন নিজেরই মনের সুর্যোদয়

একদা কবিতা তার স্তনের গোলাপ কুঁড়ি চেয়েছিলো দিতে

আপনি সে গােলাপের উজ্জলতা ছেড়ে

কাল বােশেখীর ঝড়ে চকিতে গেলেন ছুটে বাগ্মিতা নামের

দজ্জাল মেয়ের কাছে, যার ক্ষিপ্র তুমল নর্তনে স্বপ্নগুলি

পড়লো ছড়িয়ে ভাঙা ঘুঙুরের মতো।

 

কতদিন হার্মনিয়ামের রীডে নিপুণ আঙুল

তন্ময় নাচেনি আর কতদিন কামনার ঠোঁটে

আঁকেননি প্রগাঢ় চুম্বন।

এখন আপনি সেই যাত্রী আত্মভােলা, হঠাৎ যে নেমে পড়ে

ভুল ইস্টিশানে অবেলায়।

তবু আপনার মতাে কারােকেই চাই, চাই আজো নজরল ইসলাম।

 

সভায় তরঙ্গিত সুরের মতােই

হাওয়া ছুঁয়ে যায়।

অস্তিত্বের তট

এবং পবিত্র গাঙ্গুলীর দুটি অক্ষিগােলকের প্রসন্ন রশ্মির মতাে

দিবালােক আসে,

প্রমীলার হাসির মতােই জ্যোৎস্না ঝরে আপনার

বকের নির্জন মরু এবং পায়ের অন্তঃরীপে ;

তবুও বুকের মধ্যে কথা

নৈঃশব্দের গভীর মােড়ক ছেঁড়া কথা

হয় না এখন উচ্ছ্বসিত।

 

আপনার মগজের কোষে কোষে মৃত প্ৰতিধ্বনি কবিতার?

কোন কুলিনের খুন স্মৃতিময় বকুল গাছকে

অনেক পেছনে ফেলে ছায়াচ্ছন্ন বারান্দায় সুধায় ফেরারী বুলবুল :

কেমন আছ নজরুল ইসলাম?

বাদুড় বাগান লেন এবং মন্মথ দত্ত রোড

বেলগাছিয়ার

প্রতিটি সকাল আর প্রতিটি সন্ধ্যায় করে প্রশ্ন :

কেমন আছেন নজরুল ইসলাম?

 

সারা বাংলাদেশের ব্যাকুল কণ্ঠে সেই একই প্রশ্ন :

কেমন আছেন নজরুল ইসলাম?

 

[নজরুলকে নিবেদিত কবিতাগুচ্ছ : বাংলা একাডেমি, ১৯৮৩- গ্রন্থ থেকে সংগৃহীত।]

মতামত
লোডিং...